ইউক্রেনে ‘ট্যাকটিক্যাল’ পারমাণবিক বোমা হামলাও চালাতে পারেন পুতিন


Sarsa Barta প্রকাশের সময় : অক্টোবর ১৭, ২০২২, ৬:০২ পূর্বাহ্ণ /
ইউক্রেনে ‘ট্যাকটিক্যাল’ পারমাণবিক বোমা হামলাও চালাতে পারেন পুতিন

  • বিশ্লেষকেরা বলছেন, ইউক্রেনে জিতেছেন বলার মতো কিছু না পেয়ে যদি পুতিনকে এ যুদ্ধ শেষ করতে হয়, তবে রাশিয়ার পরাশক্তির মর্যাদা ধরে রাখার জন্য হলেও ইউক্রেনে মস্কোর পারমাণবিক হামলার ঝুঁকি বাড়বে।

কিন্তু ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে দখল করা কিছু এলাকা থেকে পিছু হটতে বাধ্য হচ্ছে রুশ বাহিনী। তাই পরাজয় এড়াতে রাশিয়ার পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করার আশঙ্কা এখনো রয়েছে। সে আশঙ্কা কম হলেও একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যায় না বলে মনে করেন বিশ্লেষকেরা।

স্বাভাবিকভাবেই পারমাণবিক অস্ত্র, বিশেষ করে সুনির্দিষ্ট কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্রের বিষয়টি নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে। এ অস্ত্রের বৈশিষ্ট্য কী, কেনইবা এ নিয়ে এত আলোচনা, সে সম্পর্কে ব্যাখ্যা তুলে ধরা হয়েছে আল–জাজিরার প্রতিবেদনে।

সংখ্যার দিক দিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে রাশিয়ার হাতে ফাইল

সংখ্যার দিক দিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে রাশিয়ার হাতে ফাইল
ছবি: রয়টার্স

‘সুনির্দিষ্ট কৌশলগত’ পারমাণবিক অস্ত্র কী

সুনির্দিষ্ট কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্রের সর্বজনীন কোনো সংজ্ঞা নেই। তবে আকার, নির্দিষ্ট দূরত্বে আঘাত হানার সক্ষমতা ও সীমিত দূরত্বে থাকা লক্ষ্যবস্তুতে ব্যবহারের ওপর নির্ভর করে এমন অস্ত্রকে সাধারণভাবে বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত করা হয়ে থাকে। সাধারণত প্রচলিত বোমার চেয়ে এমন ধরনের পারমাণবিক বোমা আকারে অনেক বড়। এ অস্ত্রের ব্যবহারে বিস্ফোরণস্থল থেকে অনেক দূর পর্যন্ত তেজস্ক্রিয় রশ্মির বিকিরণ ঘটে ও অন্যান্য ধ্বংসাত্মক ক্ষতি হয়। সুনির্দিষ্ট কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্রকে সংজ্ঞায়িত করার মতো বোমার নির্দিষ্ট কোনো আকার নেই।

  • ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে দখল করা কিছু এলাকা থেকে পিছু হটতে বাধ্য হচ্ছে রুশ বাহিনী। তাই পরাজয় এড়াতে রাশিয়ার পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করার আশঙ্কা এখনো রয়েছে। সেই আশঙ্কা কম হলেও একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যায় না বলে মনে করেন বিশ্লেষকেরা।

সুনির্দিষ্ট কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্রকে প্রায়ই ‘নন–স্ট্র্যাটেজিক ওয়েপনস’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়; যা ‘স্ট্র্যাটেজিক ওয়েপনস’ বা ‘কৌশলগত অস্ত্র’ থেকে আলাদা।

কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্রের (অকল্পনীয় ধ্বংসক্ষমতার থার্মোনিউক্লিয়ার/হাইড্রোজেন বোমা) তুলনায় সুনির্দিষ্ট কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্র স্বল্প দূরত্বে ব্যবহার করা হয়।

মার্কিন সামরিক বাহিনীর সংজ্ঞা অনুযায়ী, শত্রু পক্ষের ‘লড়াইয়ের ক্ষমতা ও ইচ্ছাকে’ নিশানা করে তৈরি করা হয় কৌশলগত অস্ত্র। এ নিশানাগুলোর মধ্যে রয়েছে অস্ত্রের উৎপাদন, অবকাঠামো, পরিবহন ও যোগাযোগব্যবস্থাসহ অন্যান্য লক্ষ্যবস্তু।

বিপরীতে সুনির্দিষ্ট কৌশলগত অস্ত্র কোনো লড়াইয়ে জেতার লক্ষ্যে অধিকতর ছোট পরিসরে ও তাৎক্ষণিক ফল পেতে ব্যবহার করা হয়। ‘ট্যাকটিক্যাল ওয়েপনস’ কথাটি সাধারণত এমন সব অস্ত্রের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়, যেগুলো লক্ষবস্তুতে আঘাত হানার পর বিস্ফোরণজনিত তেজস্ক্রিয়তা বেশি দূর পর্যন্ত ছড়াবে না ও তুলনামূলকভাবে কম প্রাণহানি ঘটবে।

%d bloggers like this: