‘ নজরুলের ‘লাখো কণ্ঠে বিদ্রোহী কবিতা উচ্চারণ’র অনুষ্ঠানের সমাপনী


Sarsa Barta প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ৩, ২০২২, ৭:৩৭ অপরাহ্ণ /
‘ নজরুলের ‘লাখো কণ্ঠে বিদ্রোহী কবিতা উচ্চারণ’র অনুষ্ঠানের সমাপনী

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‌‘বিদ্রোহী’ কবিতার শতবর্ষে গাইবান্ধায় শনিবার ‘লাখো কণ্ঠে বিদ্রোহী কবিতা উচ্চারণ’র সমাপনী অনুুষ্ঠান জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। গাইবান্ধার নজরুল চর্চা কেন্দ্র এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

সকালে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শেষে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন নজরুল চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কর্নেল মঈনুল হক (অব.)। প্রধান আলোচক ছিলেন কবি নজরুল ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ জাকীর হোসেন। অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কবি কাজী নজরুল ইসলামের নাতনী ও নজরুল ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য খিলখিল কাজী, রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. সরিফা সালোয়া ডিনা, গাইবান্ধা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু বকর সিদ্দিক, গাইবান্ধা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের পুলিশ সুপার এ আর এম আলীফ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সুশান্ত কুমার মাহাতো, নজরুল চর্চা কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপিকা ফেরদৌসী জাহান সিদ্দিকা, অধ্যাপক মাজহারুল মান্নান ও প্রফেসর খলিলুর রহমান প্রমুখ।

নজরুল চর্চা কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপিকা ফেরদৌসী জাহান সিদ্দিকা তার বক্তব্যে বলেন, ২০২১ সালের ২৫ ডিসেম্বর ‘লাখো কণ্ঠে বিদ্রোহী কবিতা উচ্চারণ’র যাত্রা শুরু হয়। গাইবান্ধার প্রায় ৭০ হাজারসহ দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের এক লাখ কণ্ঠে বিদ্রোহী কবিতা ধারণ করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে খিলখিল কাজী বলেন, নজরুল ইসলাম সবার প্রাণের কবি। তিনি মাত্র ২১ বছর বয়সে বিদ্রোহী কবিতা লেখেন, যা তখনকার স্বদেশী আন্দোলনকারীদের ব্যাপকভাবে অনুপ্রাণিত করেছিল। এই দুর্দান্ত কবিতাটিতে এক লাখ কণ্ঠ যারা দিয়েছেন তাদের শুভেচ্ছা জানাই। সবাই এই কবিতা জানুক-এই লক্ষ্য এই কর্মসূচির মাধ্যমে সফল হয়েছে।

পরে আলোচনা শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

%d bloggers like this: